মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতা

পটভূমি:

১৯৯৮-৯৯ অর্থ বছরে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন সমাজসেবা অধিদফতরের মাধ্যমে বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের ভাতা কর্মসূচি প্রবর্তন করা হয়। ঐ অর্থ বছরে ৪ লক্ষ ৩ হাজার ১১০ জনকে এককালীন মাসিক ১০০ টাকা হারে  ভাতা প্রদান করা হয়। ২০০৩-০৪ অর্থ বছরে এ কর্মসূচিটি সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত করা হয়।  বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতা কর্মসূচি বাস্তবায়নে অধিকতর গতিশীলতা আনয়নের জন্য বর্তমান সরকার পুনরায় ২০১০-১১ অর্থ বছরে এ কর্মসূচি সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত করে। বর্তমান সরকারের উদ্যোগে প্রবর্তিত এ কর্মসূচি সমাজসেবা অধিদফতর সফলভাবে বাস্তবায়ন করছে। এ কর্মসূচির আওতায় ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ১৪ লক্ষ জন ভাতাভোগীর জন্য জনপ্রতি মাসিক ৫০০ টাকা হারে মোট ৮৪০ কোটি টাকা বরাদ্দের সংস্থান রাখা হয়েছে। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত করার পর বিগত ৬ বছরে বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতা বিতরণে প্রায় শতভাগ সাফল্য অর্জিত হয়েছে।

 

বাস্তবায়নকারী দফতর

সমাজসেবা অধিদফতর

 

কার্যক্রম শুরুর বছর

১৯৯৮-৯৯ অর্থবছর

 

কর্মসূচির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

১.বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও সামাজিক নিরাপত্তা বিধান;

২. পরিবার ও সমাজে তাঁদের মর্যাদা বৃদ্ধি;

৩. আর্থিক অনুদানের মাধ্যমে তাঁদের মনোবল জোরদার করা;

৪. চিকিৎসা সহায়তা ও পুষ্টি সরবরাহ বৃদ্ধিতে আর্থিক সহায়তা প্রদান

বিধবার সংজ্ঞা:

  • বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতা প্রদান কর্মসূচি আওতায় -‘বিধবা’ বলতে তাদেরকেই বুঝানো হবে যাদের-স্বামী মৃত;
  • ‘স্বামী নিগৃহীতা’ বলতে তাঁদেরকেই বুঝানো হবে যাঁরা স্বামী কর্তৃক তালাকপ্রাপ্তা বা অন্য যে কোন কারণে অন্ততঃ দু’বছর যাবৎ স্বামীর সংগে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বা একত্রে বসবাস করেন না ।

 

প্রার্থী নির্বাচনের মানদন্ড:

() নাগরিকত্ব: প্রার্থীকে অবশ্যই বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে।

() বয়স: বয়স অবস্যই ১৮ (আঠার) বছরের ঊর্ধ্বে হতে হবে। তবে সর্বোচ্চ বয়স্ক মহিলাকে অগ্রাধিকার প্রদান করতে হবে।

() স্বাস্থ্যগত অবস্থা: যিনি শারীরিকভাবে অক্ষম অর্থাৎ সম্পূর্ণরূপে কর্মক্ষমতাহীন তাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে।

() আর্থ-সামাজিক অবস্থা:

(১) আর্থিক অবস্থার ক্ষেত্রে: নিঃস্ব, উদ্বাস্ত্ত ও ভূমিহীনকে ক্রমানুসারে অগ্রাধিকার দিতে হবে।

(২) সামাজিক অবস্থার ক্ষেত্রে: নিঃসমত্মান, পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন ব্যক্তিদেরকে ক্রমানুসারে অগ্রাধিকার দিতে হবে।

()  ভূমির মালিকানা: ভূমিহীন প্রার্থীকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে বসতবাড়ী ব্যতিত কোন ব্যক্তির জমির পরিমাণ

০.৫ একর বা তার কম হলে তিনি ভূমিহীন বলে গণ্য হবেন।

 

ভাতা প্রাপকের যোগ্যতা ও শর্তাবলী:

১.  সংশ্লিষ্ট এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে;

২.  জন্ম নিবন্ধন/জাতীয় পরিচিতি নম্বর থাকতে হবে;

৩.  বয়ঃবৃদ্ধা অসহায় ও দুঃস্থ বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতা মহিলাকে অগ্রাধিকার প্রদান

৪.  যিনি দুঃস্থ, অসহায়, প্রায় ভূমিহীন, বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতা এবং যার ১৬ বছর

    বয়সের নীচে ২টি সন্তন রয়েছে, তিনি ভাতা পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন;

৫.  দুঃস্থ, দরিদ্র, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতাদের মধ্যে যারা প্রতিবন্ধী ও অসুস্থ তারা

    ভাতা পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন;

৬.  প্রার্থীর বার্ষিক গড় আয়ঃ অনূর্ধ ১২,০০০ (বার হাজার) টাকা হতে হবে;

৭.  বাছাই কমিটি কর্তৃক নির্বাচিত হতে হবে।

 

বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতা বৃদ্ধির পরিসংখ্যান:

 

উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়, ফকিরহাট, বাগেরহাট-এ বরাদ্দকৃত বিধবা স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতার কালানুক্রমিক বৃদ্ধি:

সময়কাল

উপকারভোগীর সংখ্যা

মাসিক ভাতা

বরাদ্দের পরিমাণ (টাকা)

২০০০-০২

৩৬০ জন

১০০ টাকা

৪,৩২,০০০ টাকা

২০০২-০৩

৪৩২ জন

১২৫ টাকা

৬,৪৮,০০০ টাকা

২০০৩-০৪

৪৬৯ জন

১৫০ টাকা

৮,৪৪,২০০ টাকা

২০০৪-০৫

৮২৯ জন

১৬৫ টাকা

১৬,৪১,৪২০ টাকা

২০০৫-০৭

১০৪৫ জন

১৮০ টাকা

২২,৫৭,২০০ টাকা

২০০৭-০৮

১৫৪৯ জন

২২০ টাকা

৪০,৮৯,৩৬০ টাকা

২০০৮-০৯

১৬১৩ জন

২৫০ টাকা

৪৮,৩৯,০০০ টাকা

২০০৯-১৩

১৬১৩ জন

৩০০ টাকা

৫৮,০৬,৮০০ টাকা

২০১৩-১৫

১৭৭৪ জন

৩০০ টাকা

৬৩,৮৬,৪০০ টাকা

২০১৫-১৬

১৯৪৬ জন

৪০০ টাকা

৯৩,৪০,৮০০ টাকা

২০১৬-১৭

২০০৩ জন

৫০০ টাকা

১,২০,১৮,০০০ টাকা

২০১৭-১৮

২১৯৩ জন

৫০০ টাকা

১,৩১,৫৮,০০০ টাকা

ছবি

বিধবা ভাতা বাস্তবায়ন নীতিমালা বিধবা ভাতা বাস্তবায়ন নীতিমালা


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter